কান্দিপাড়া পুকুর দূষণ রোধে “নোঙর-ব্রাহ্মণবাড়িয়া” শাখার আহবানে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা ২৬ জানুয়ারি২০২০, রবিবার দুপুর ১২:০০টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের কান্দিপাড়া মাদ্রাসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন রাধার মার পুকুরটি দূষণ মুক্ত করতে শিক্ষার্থীরা হাতে বিভিন্ন স্লোগানের প্লেকার্ড নিয়ে নোঙর আয়োজিত মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেছে।

স্লোগানের মধ্যে রয়েছে : “নিজে সুস্থ থাকুন এবং অন্যকে সুস্থ রাখুন, দূষণমুক্ত পরিবেশে, নিশ্বাস নেন অনায়াসে, রুখবো আবর্জনা গড়বো দেশ, দূষণমুক্ত বাংলাদেশ, বাড়ি ঘরের আবর্জনা, এখানে কেউ ফেলবেন না, মন্দ থাকার দিন শেষ, ভালো রাখুন পরিবেশ, সুস্থ সুন্দর পরিবেশ, ভালো থাকুক বাংলাদেশ, মশা, মাছি ময়লার বাড়ি, রোগ ছড়ায় তাড়াতাড়ি, দূষণ থেকে বাঁচতে চাই, বিদ্যালয়ে পড়তে চাই, নির্মল বাতাস, সুন্দর মন ভালো থাকার আয়োজন, ভালো থাকার পরিবেশ, নিজের হাতে করছি শেষ, ময়লা গন্ধে বাঁচা দায়, একটু ভালো থাকতে চাই, পুকুর দূষণ রোধ করি, সুস্থ সুন্দর জীবন গড়ি, পুকুর দূষণ অপরাধ, সবাই করবো প্রতিবাদ, পুকুর রাখলে পরিষ্কার, সবার হবে উপকার, সবাই মিলে জলাশয় বাঁচাই, নিজে বাঁচি অন্যকে বাঁচাই, রক্তের কেনা বাংলাদেশ, আসুন আমরা দূষণমুক্ত দেশ গড়ি, ময়লা থেকে রেহাই দিন, ভালোবাসায় থাকবে ঋণ, আসুন হাতে হাত ধরি, প্লাস্টিক মুক্ত দেশ গড়ি, রক্ষা করি পরিবেশ, গড়ি সোনার বাংলাদেশ, পলিথিন বর্জন করুন, পরিছন্ন পরিবেশ গড়–ন, দূষণ হঠাও পরিবেশ বাঁচাও”।

মাদ্রাসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. সাঈম খানের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নোঙর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখার সভাপতি শামীম আহমেদ, সহ-সভাপতি মনিরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক খালেদা মুন্নী, কাশেম মোল্লা, মাদ্রাসা সরকারি প্রাতমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সহ-সভাপতি মো. আরমান মিয়া, ইকরামুল হক রুবেল, অঙ্কুর শিশু-কিশোর সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা আনিছুল হক রিপন, নাঈম বীন সওদাগর, মুফতী মো. এনামুল হাসান, বিজয় টিভির প্রতিনিধি খাইরুল কবির, কামরুজ্জামান টিটু, সোহেল খান, শান্তা ইসলাম, আশুতোষ রায়, সাংবাদিক প্রবীর চোধুরী রিপন, পথিক টিভির সম্পাদক জিহাদ হোসাইন লিটন, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ফেবিন রহমানসহ এলাকাবাসী ও অত্র বিদ্যালয়ের সকল কোমলমতি শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধন পরিচালনা করেন নোঙর নির্বাহী সদস্য সোহেল আহাদ। মানববন্ধনে এলাকাবাসী ও বক্তারা বিভিন্ন দাবী তুলে ধরেছেন। বক্তারা বলেন আমাদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে এক সময় শত শত পুকুর ছিল। দিন দিন জনসংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি মানুষের চাহিদা মেটানোর জন্য শহরের বিভিন্ন মহল্লায় থাকা উন্মুক্ত জলাশয় ভরাট করে আবাসিক বাড়ি নির্মাণ করে নিঃশ্বেষ করা হচ্ছে পুকুর, ডোবা, নালাসহ বিভিন্ন জলশায়। অবশিষ্ট যা রয়েছে তাও আবার ভূমিদস্যুদের দখলে চলে যাচ্ছে। ভূমিদস্যুরা পুকুর, ডোবা, নালা, জলাশয় দখলের জন্য নানা ধরনের অপকৌশল ব্যবহার করছে। যেমন, পুকুরে ময়লা, আবর্জনা, পলিথিন ফেলে জলায়শয়টিকে ব্যবহারের অনুপযোগী করে রাখে। তারপর এক সময় রাতের আঁধারে ট্রাক দিয়ে মাটি ফেলে জলাশয়টি ভরাট করে আবাসন তৈরি করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *